পাহাড়ের জমির মালিকানার উদ্ভট দাবীদার !

‘জুম্ম জাতি’  অভিধাটি মানুষের জাতিগত পরিচয়ের পরিবর্তে পেশাগত পরিচিতি হিসেবেই গণ্য করা হয়। ঝুম পদ্ধতিতে বাংলাদেশের অন্যান্য সমতল ভূমির মত একই জমিতে অবিরাম চাষ করা যায় না। আবার, একেবারে অনাবাদী, নতুন ভুমি না হলে ফসল ভালো হয় না। অনেক সময় হাতের কাছে উপযুক্ত জমিও পাওয়া যায় না। তাই, জুমিয়াদের মুলত জীবিকার প্রয়োজনে, পাহাড় থেকে পাহাড়ে স্থানান্তর করে জীবন যাপনে অভ্যস্ত হতে হয়।

বস্তুত, সামাজিক বিশ্বাস, জীবন প্রণালী আর প্রথাগত কারণেই জুমিয়াদের ভূমির মালিকানার প্রয়োজন অনুভুত হয়নি।  এজন্যেই, প্রাচীন পাহাড়ি সমাজে ভূমির ব্যক্তি মালিকানার কোন সুযোগই ছিল না। বরং ভুমিকে সামাজিক সম্পত্তি হিসেবে গণ্য করা হত।  যেখানে ভূমির উপর ব্যক্তির অধিকার শুধুমাত্র ব্যবহারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল।  ভূমির কোন ব্যক্তি মালিকানা ছিল না। তাদের বিশ্বাস অনুযায়ী, ব্যক্তির পরিবর্তে গ্রাম্য সমাজ, আত্নীয়তার বন্ধনে আবদ্ধ কোন গোত্র বা দল, এমনকি অলৌকিক আত্নারাই ভূমির মালিক ছিল।

এরূপ পরিস্থিতিতে, ১৮৬৮  সালে ব্রিটিশ সরকার পার্বত্য অঞ্চলের সকল ভূমির মালিকানা দাবী করে। এর পিছনে, বনভুমি হতে  খাঁজনা আদায়ের পরিমাণ বৃদ্ধি করা অন্যতম প্রধান কারণ ছিল। তবে তৎকালীন চীফগন সরকারের এহেন দাবীর বিরোধিতা করে ভূমির মালিকানা দাবী করলেও ব্রিটিশ সরকার চীফদের সেই দাবীকে কখনই স্বীকৃতি দেয়নি। আমেনা মহসিনের মতে, বরং সরকারী ভাষ্য ছিল,

“The chiefs of the CHT have no title to the ownership of the land which is vested exclusively in the Crown: they exercise only the delegated right of collecting taxes and rents on behalf of the government (Government of Bengal 1918:32)”
(Mohsin, 1997, p. 87)

সরকারের এমন দাবীর পিছনে যুক্তি ছিল যে, উপজাতীয়দের চীফগন উপজাতি বা গোত্র অনুযায়ী ক্ষমতাপ্রাপ্ত ছিলেন, ভূমির ভিত্তিতে নয়। অর্থাৎ চীফদের ভূমির উপর কোন অধিকার ছিল না, বরং মানুষের উপর ছিল। ফলশ্রুতিতে, ঐ সময় থেকেই পার্বত্য অঞ্চলের ভূমির উপর সরকার চূড়ান্ত এবং অসীম ক্ষমতা প্রাপ্ত হয়ে যায়।

সমসাময়িক কালেই, পার্বত্য অঞ্চলের ভুমিকে সরকারীভাবে  দুই ভাগে ভাগ করা হয়।  ব্যক্তিগতভাবে চাষাবাদের জন্য সমতলের জমিকে এক দিকে আর জুম চাষের জন্য পাহাড়ি জমিকে অন্যদিকে ফেলা হয়।

চাষাবাদের জন্য কিছু ভূমি ব্যক্তি মালিকানায় দেয়া হয়। যেগুলো জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে ব্যক্তি মালিকানায় নেয়া হত, তবে নির্দিষ্ট শর্তে। এই প্রকারের জমি ব্যক্তির নামে জেলা প্রশাসকের অফিসে রেজিস্ট্রেশন করতে হত। এছাড়াও হয় সরাসরি, নতুবা গ্রামের হেডম্যানের মাধ্যমে সরকারকে এই জমির ভাড়া বা খাঁজনা  প্রদান করতে হত। স্থানীয় প্রতি উপজাতি পরিবার সাধারনভাবে সর্বোচ্চ ২৫ একর পর্যন্ত জমি এই প্রক্রিয়ায় নিতে পারত। জমির গুণাগুণ অনুযায়ী, সকল সমতল ভুমিকে সাধারনভাবে ১ম শ্রেণী, ২য় শ্রেণী এবং ৩য় শ্রেণী – এই তিন শ্রেণীতে ভাগ করা হয় এবং  জমির খাঁজনার তারতম্যও করা হয়। ব্যক্তিগত মালিকানার ব্যাপারে, ১৯০০ সালের সিএইচটি ম্যানুয়ালে বলা হয়েছে,

  “A tenant directly under government shall have permanent and heritable rights in the land for which he pay tax… (CHT Manual 1942)”

তবে, সরকার চাইলে আর্থিক ক্ষতিপূরণ দিয়ে এই প্রকারের জমি অধিগ্রহন করতে পারত। (Mohsin, 1997, p. 88)

দ্বিতীয় প্রকারের ভুমিতে কোন ব্যক্তি মালিকানা ছিল না। শুধু ভুমি ব্যবহারের অধিকার ছিল – এই ধরণের মালিকানা ছিল জুম চাষের জমির জন্যে। অনেকটা আগে আসলে আগে পাবেন ভিত্তিতে, এই শ্রেণীর জমি যে আগে পরিস্কার করে চাষাবাদ করবে, জমি ব্যবহারের অধিকার তারই হবে। কিন্তু গ্রামের হেডম্যানের কাছে জমি ব্যবহার সংক্রান্ত সম্মতি/ অনুমোদন নিতে হবে।  এখানে মালিকানা ছিল সরকারের, উপজাতীয়দের শুধুমাত্র ভুমি ব্যবহারের অধিকার ছিল। জমি ব্যবহারের এই চর্চা শত বছর ধরে চলে আসছিল. এর কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে আমেনা মহসিন Piere Bessaignet এর The Tribesmen of the Chittagong Hill Tracts বই হতে উধৃতি দিয়েছেন (Bessaignet, 1958),

“ ….tribal people have no actual concept of land ownership. They use the land but they do not regard it as a thing that is ‘theirs’. They are therefore, concerned with the rights not with ownership as such.” (Mohsin, 1997, p. 88)

সহজ ভাবে বললে, আমাদের দেশের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের সমাজে জমির মালিকানা সংক্রান্ত কোন ধারনা  ছিল না। শত বছরের চর্চা,  সামাজিক প্রথা, এবং জুম চাষের বিশেষ পদ্ধতির কারণে তাদের মধ্যে শুধুমাত্র জমি ব্যবহারের অধিকারের ধারনা ছিল, যা ছিল সাময়িক মাত্র, স্থায়ী কিছু নয়। ঝুম চাষের প্রয়োজনেই তারা এক পাহাড় হতে অন্য পাহাড়ে বা অন্য এলাকায় চলে যেত। পরবর্তীতে, ব্রিটিশ সরকারের ১৮৬৮ সালের পার্বত্য অঞ্চলের সমস্ত ভূমির মালিকানা ঘোষণার পরে সরকারীভাবে জেলা প্রশাসকের অনুমতি সাপেক্ষে জমির ব্যক্তিগত মালিকানা চালু হয়।

উল্লেখ্য যে, বনজ সম্পদ সংরক্ষনের অভিপ্রায়ে ব্রিটিশ সরকার ১৮৬৫ সালে ইনডিয়ান ফরেস্ট রিজার্ভ অ্যাক্ট পাশ করে। এরপরে  উপযুক্ত  সংরক্ষিত বনাঞ্চল খুঁজে বের করার জন্যে পার্বত্য চট্রগ্রামে ব্যাপক পরিদর্শন শুরু হয়। যার চূড়ান্ত ফলস্বরূপ, ফেব্রুআরি ১৮৭১ সালের ভিতরেই, পার্বত্য চট্রগ্রামের ৬৮৮২ বর্গ কিমি এর মধ্যে ৫৬৭০ বর্গ কিমি কে সরকারী রিজার্ভ ফরেস্ট হিসেবে ঘোষণা করা হয়। নিজেদের গৃহস্থালি উদ্দেশ্য পুরনের উদ্দেশ্যে স্থানীয় অধিবাসিদের এই বনভুমির বনজ সম্পদ ব্যবহার করার অধিকার দেয়া ছিল।

কিন্তু কয়েক বছর পরেই, ১৮৭৫ সালে, এই বনভুমিকে আরো দুই শ্রেনিতে ভাগ করা হয়, যথাঃ  রিজার্ভ ফরেস্ট এবং ডিস্ট্রিক ফরেস্ট। রিজার্ভ ফরেস্ট সম্পূর্ণরুপে বন বিভাগের হাতে ন্যস্ত করা হয়। যেখানে জুম চাষসহ সকল ধরণের বনজ সম্পদ আহরন নিষিদ্ধ ছিল।

দ্বিতীয় ক্যাটাগরি ছিল –  ডিস্ট্রিক ফরেস্ট ( যা বর্তমানে আনক্লাসড স্টেট ফরেস্ট হিসেবে পরিচিত)। এখানে জুম চাষসহ বনজ সম্পদ আহরন করার অনুমতি ছিল।

ব্রিটিশ আমলে পার্বত্য অঞ্চলের রিজার্ভ ফরেস্টের পরিমাণ নিচের টেবিলে দেখানো হলঃ

রিজার্ভ ফরেস্টের নাম ঘোষনার সময় বর্গ কিঃমিঃ
কাসালং ১৮৮১ ১৬৪৩
মাইনী ১৮৭৫
সিতাপাহাড় ১৮৭৫ ৫৯
মাতামুহুরী ১৮৮০ ৪১৬
সাঙ্গু ১৮৮১ ৩৩২
রেংখিয়াং ১৮৮২ ৭৬৩
বরকল ০২
৩২১৫

সুত্রঃ আমেনা মহসিন (১৯৯৭), পৃষ্ঠা – ৯২।

সম্প্রতি জাতীয় সংসদে পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন (সংশোধন) বিল-২০১৬ পাশ হওয়ার পর থেকেই কিছু উপজাতীয় নেতৃবৃন্দ সর্বত্র একটা আওয়াজ তোলার চেষ্টা করছেন যে, পাহাড়ের সকল জমি পাহাড়িদের (ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের) এবং এখানে কোন সরকারী জমি নেই।

অথচ, দেখা যাচ্ছে যে, ১৮৭১ থেকে ১৮৮৫ সালের মধ্যে পার্বত্য চট্রগ্রামের তিন- চতুর্থাংশ এলাকাই সরকারী বনভুমি হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছিল। যদি উপজাতীয়দের দাবী অনুযায়ী  সিএইচটি ম্যানুয়াল ১৯০০ কার্যকরী করা হয়, তাহলেতো তৎকালীন  ব্রিটিশ সরকারের এই বনভুমির অধিকার বর্তমানের বাংলাদেশ সরকারের হাতেই ন্যস্ত হয়ে যায়। স্মরণযোগ্য, যেখানে জেলা প্রশাসক ভুমি বন্দোবস্ত দেয়াসহ  প্রভূত ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন।

আরো মজার ব্যাপার হল, জুম চাষের কারণেই মুলত প্রাচীন পাহাড়ি সমাজে জমির ব্যক্তি মালিকানার পরিবর্তে সামাজিক মালিকানায় বিশ্বাস করা হত। বর্তমান যুগে, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের একটা বড় অংশ লেখাপড়া শিখে চাকুরি করছে, অনেকেই ব্যবসা-বানিজ্যে জড়িয়ে পড়েছে। তাদের আর  জুম চাষ করার অবকাশ নেই। যদি তারা জুম চাষই না করে, তাহলে সামাজিক জমির অংশীদার হওয়ার জন্যে অযোগ্য বলে বিবেচনা করাই স্বাভাবিক। সেক্ষেত্রে, যেখানে জুম চাষের  কোন অবকাশ নেই, সেখানে সামাজিক ভূমির অবকাশ না থাকাই স্বাভাবিক। এমতাবস্থায়, পার্বত্য সমাজের অংশবিশেষ জুম চাষের বাইরে চলে যাওয়ার পরেও শুধুমাত্র প্রথার দোঁহাই দিয়ে পাহাড়ের সমস্ত জমিকে সামাজিক জমি হিসেবে দাবী করা নিতান্তই অযৌক্তিক।

সুতরাং ঐতিহাসিক তথ্য, প্রাচীন রীতি ও চর্চা এবং সমসাময়িক বাস্তবতা পর্যবেক্ষণে এই ধারনা জন্মানো অমুলক নয় যে, স্বার্থান্বেষী একটা মহল  পার্বত্য অঞ্চলের  ভুমি সমস্যা সমাধানে সরকারের আন্তরিকতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করা আর এই সমস্যা জিইয়ে রাখার মানসিকতা থেকেই ভূমির মালিকানা সংক্রান্ত উদ্ভট দাবী তৈরি করছে।

দেশের একটা অংশে কিভাবে সরকারের কোন জমি না থাকার মত উদ্ভট ধারনা মানুষের মাথায় আসে, সে প্রসঙ্গ অবতারনার নিতান্তই নিষ্প্রয়োজন। তাও আবার, পার্বত্য চট্রগ্রামে, যেখানে ভু-প্রকৃতির বৈশিস্টের কারণেই মানুষের বসবাস আদিকাল থেকেই কম ছিল। এহেন বাস্তবতায়, এমন ধারনার উদ্রেক হওয়া অমুলক নয় যে, মুলত বাংলাদেশ সরকারের কর্তৃত্ব আর নিয়ন্ত্রণ অস্বীকার করার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার অংশ হিসেবে আপাতদৃষ্টিতে এমন উদ্ভট কিন্তু অন্তর্নিহিত তাৎপর্যে অত্যন্ত সুদূরপ্রসারী  এই  ধারনা নিরীহ উপজাতিদের মাথায় গেঁথে দেয়ার অপচেস্টা করা হচ্ছে।

এর পাশাপাশি আরেকটা সুপ্ত উদ্দেশ্য হতে পারে, পাহাড়ে বাঙ্গালীদের জমির মালিকানার দাবীকে দুর্বল করা এবং পর্যায়ক্রমে তাদেরকে জমিবিহীন করে ফেলা – যতজনকে সম্ভব। যার কিছু হিন্টস পাওয়া যায়, সাম্প্রতিক কিছু ঘটনায় যেখানে, পাহাড়িরা বাঙালীদের জমি দখলের চেষ্টা করেছে।  আর না হয়, নিজের বৈধ জমি ভোগ করতে বাঙ্গালী মালিককে বাঁধা দিয়েছে।  কোন কোন ক্ষেত্রে এমনো ঘটেছে যে, বংশানুক্রমে ভোগ করা নিজ জমিতেই বাঙ্গালীকে যেতে দেয়া হয়নি, বাঁধা দেয়া হয়েছে।

তথ্যসুত্রঃ
১। Bessaignet, P. (1958). Tribesmen of the Chittagong Hill Tracts. Dacca: Asiatic Society of Pakistan.

২। Mohsin, A. (1997). The Politics of Nationalism: The Case of the Chittagong Hill Tracts Bangladesh. Dhaka: The University Press Limited.

What do you think of this post?
  • Like (1)
  • Awesome (0)
  • Interesting (0)
  • Boring (0)
Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
1

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *